fbpx
Ad

শীতকালে কি ভিটামিন ডি- এর অভাব সবথেকে বেশী হয়?

Published on:

শীতের দুপুর মানেই বেশীরভাগ বাঙালির কাছে পেট পুরে ভাত খেয়ে গরম লেপের নীচে ঘুমিয়ে থাকা। বিশেষ করে যারা সারাদিন ঘরের কাজে ব্যস্ত থাকেন, তারা শীতের দুপুরে একটু সময় ঘুমিয়ে বিশ্রাম নিতে বেশী পছন্দ করেন। ফলে সারাদিন সূর্যের মুখ আর দেখা হয়ে ওঠে না। আর এতেই শরীরে ভিটামিন ডি-এর অভাব দেখা যায়। এর কারণ, আমাদের ত্বক সূর্যের আলোর মাধ্যমে ভিটামিন ডি-কে শরীরে সংশ্লেষিত হতে সাহায্য করে। আর দীর্ঘদিন ধরে সূর্যের আলো থেকে বঞ্চিত থাকলে আমাদের শরীরে ভিটামিন ডি-এর অভাব পরিলক্ষিত হয়। এছাড়াও, অনেকে পুরো শীতকাল ধরে সারাদিন সোয়েটার বা গরম কাপড় পড়ে থাকেন। এর ফলে, শরীর পর্যাপ্ত পরিমাণে সূর্যের আলো লাভ করতে পারে না।         

মনে রাখতে হবে, যখন আমাদের ত্বক সূর্যালোকের সংস্পর্শে আসে, তখন আমাদের ত্বক অতিবেগুনী রশ্মির সঙ্গে বিক্রিয়া ঘটিয়ে শরীরে ভিটামিন ডি-এর সংশ্লেষ হতে সহায়তা করে। অথচ শীতকালে প্রচণ্ড বেশী কুয়াশার কারণে দিনের অনেকটা সময় সূর্যের মুখ দেখা যায় না। আবার সূর্য উঠলেও রোদের তেমন তেজ থাকে না। আর আমাদের শরীরও প্রয়োজনীয় হারে সূর্যের আলো পেতে পারে না। ফলে, বিভিন্ন ঋতুতে আমাদের শরীরে ভিটামিন ডি-এর পরিমাপে তারতম্য দেখা যায়।    

শীতকালে শরীরে ভিটামিন ডি–এর মাত্রা সঠিক রাখতে হলে নিয়ম করে অন্তত ১৫ মিনিট সূর্যের আলোয় থাকা উচিৎ। এই সময় সোয়েটার বা অন্য কোনও গরম পোশাক দিয়ে শরীরকে ঢেকে রাখার দরকার নেই। এছাড়াও, ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করে ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ ওষুধ খেতে পারেন। এমন বেশ কিছু খাদ্যবস্তু আছে যার মধ্যে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়। যেমন- স্যালমন, ম্যাকারেল এবং টুনা মাছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ডি থাকে। একইসঙ্গে, পনির, ডিম, মাশরুমও ভিটামিন ডি-এর খুব ভালো উৎস। সবথেকে বড় কথা, আপনার শরীরে সঠিক পরিমাণে ভিটামিন ডি-এর উপস্থিতি রয়েছে কিনা, তা সুনিশ্চিত হতে নিয়মিত অবশ্যই পরীক্ষা করাবেন।     

Disclaimer: Medical Science is an ever evolving field. We strive to keep this page updated. In case you notice any discrepancy in the content, please inform us at [email protected]. You can futher read our Correction Policy here. Never disregard professional medical advice or delay seeking medical treatment because of something you have read on or accessed through this website or it's social media channels. Read our Full Disclaimer Here for further information.

Disclaimer: Medical Science is an ever evolving field. We strive to keep this page updated. In case you notice any discrepancy in the content, please inform us at [email protected]. You can further read our Correction Policy here. Never disregard professional medical advice or delay seeking medical treatment because of something you have read on or accessed through this website or it's social media channels. Read our Full Disclaimer Here for further information.

2,666FansLike
0FollowersFollow
250SubscribersSubscribe

Read More

ফ্যাক্ট চেক : ই-কমার্স ওয়েবসাইট চ্যাম্প ফিট একটি ভিডিও দ্বারা দাবি করেছে যে স্টিম দিয়ে করোনাভাইরাসকে আটকানো যাই

সারমর্ম চ্যাম্প.ফিট নামে একটি চ্যানেল ইউটিউবে আপলোড করা একটি ভিডিওতে দাবি করেছে যে স্টিম বা গরম বাষ্প করোনাভাইরাসকে মানব দেহে প্রবেশ করা থেকে আটকাতে সহায়তা...

আনন্দবাজার পত্রিকাতে প্রকাশিত ফেক নিউজ: নুন জলে সারে না কোভিড ১৯

আনন্দবাজার পত্রিকাতে ৫ই জুলাই প্রকাশিত একটি খবরে দাবি করা হয় যে এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন নুন জলে গার্গল করলেই কোভিড ১৯ সেরে যায় | খবরটি তে কলকাতার ডাক্তার শান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায়ের উক্তি ব্যবহার করা হয় যেখানে উনি দাবি করেন 'গার্গল করলে করোনা ভাইরাসের প্রোটিনের আচ্ছাদন সরে গিয়ে ভাইরাস নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে' | খবরটি সম্পূর্ণ রূপে মিথ্যা এবং বিপজ্জনক|

কোভিড -১৯ হোম ট্রিটমেন্টের পরামর্শ যুক্ত টাটা হেলথের নামে প্রচার করা হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজটি মিথ্যা এবং বিপজ্জনক

সারমর্ম একটি হোয়াটসঅ্যাপ বার্তা টাটা হেলথের নাম দিয়ে প্রচার করা হচ্ছে । বার্তাটিতে COVID-19 এর তিনটি পর্যায়ের কথা বলা হয়েছে এবং বিভিন্ন সেলফ-মেডিকেশন বা নিজে...

করোনাভাইরাস নিরাময়ে গরম চা পান করতে হবে? জানুন এই দাবি সত্যি কি না

সারমর্ম করোনভাইরাস নিরাময় সম্পর্কে আবার একটি দাবি সোশ্যাল মিডিয়াতে। এটি হ'ল ভাইরাস দমন করতে গরম চা পান করা, বাষ্প নিঃসরণ করা এবং গরম জলের সাথে...

নারকেল তেল কি ডেঙ্গুর মশার কামড় থেকে বাঁচাতে পারে ?

সারমর্ম একটি সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে দাবি করা হয়েছে যে হাঁটুর নীচে নারকেল তেল প্রয়োগ করলে মশার কামড় থেকে রক্ষা পাওয়া যায় এবং এর ফলে ডেঙ্গু...

গরম জল খেলে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়া যায় ?

সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে দাবি করা হয়েছে, "করোনভাইরাসটি ফুসফুসে পৌঁছানোর আগে এটি চার দিন গলায় থাকে এবং এই সময়ে আক্রান্ত ব্যক্তির কাশি এবং গলায় ব্যথা শুরু হয় । যদি সেই আক্রান্ত ব্যাক্তি এই সময় প্রচুর পরিমাণে জল পান করেন এবং হালকা গরম জলে নুন বা ভিনেগার মিশ্রিত করে গার্গল করেন তবে ভাইরাসটি মারা যাবে ।

THE HEALTHY INDIAN PROJECT'S E-MAGAZINE:

INDIA'S TRYST WITH ALTERNATIVE MEDICINES DURING COVID-19

Disclaimer: Medical Science is an ever evolving field. We strive to keep this page updated. In case you notice any discrepancy in the content, please inform us at [email protected]. You can futher read our Correction Policy here. Never disregard professional medical advice or delay seeking medical treatment because of something you have read on or accessed through this website or it's social media channels. Read our Full Disclaimer Here for further information.

×

Hello!

Not convinced of a health information or news you have read on social media or received as a forward on WhatsApp? Our Fact Checkers will help you. Send us the information and we will Fact Check it for you.

× Want us to verify the truth of a health fact?